আর্জেন্টিনার হার দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু,সৌদির উল্লাস

 ফর্মের তুঙ্গে ছিল আর্জেন্টিনা। টানা ৩৬ ম্যাচ অপারাজিত ছিল। যা তাদের এক অন্যরকমের রেকর্ড। আজ বাংলাদেশ সময় বিকাল ৪টায় খেলা ছিল সৌদি আরবের বিপক্ষে ফিফা বিশ্বকাপের গ্রুপ ম্যাচে। শক্তিমত্তার দিক দিয়েও আর্জেন্টিনাই ফেবারিট। 

সৌদি আরব বনাম আর্জেন্টিনা

এবারের বিশ্বকাপের আগের ম্যাচগুলোতে যেইরকম ভয়ংকর ছন্দে ছিল। তাতে আর্জেন্টাইন ভক্ত-সমর্থকদের মধ্যে যেন সেমি কিংবা ফাইনালে যাবার বারতি তারোনা ছিল। কিন্তু সৌদি আরব তাতে জল ঢেলে দিল যেন!। 


নিজেদের প্রথম ম্যাচেই হেরে চাপের মুখে আর্জেন্টিনা। এখনও দুটি ম্যাচ থাকলেও,আছে সংশয়। যদি আবারও ঘটে অঘটন,তাহলে আর হবে না,শেষ রক্ষা। 


ম্যাচের শুরুর ২ মিনিটেই গোল হতে পারতো,কিন্তু সেই সম্ভাবনাকে রুখে দেয় সৌদি আরবের গোল কিপার। কিন্তু বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি,ম্যাচের যখন ১০ মিনিট,তখন পারদেসকে ডি-বক্সের ভিতরে ফাউল করা হয়। সেইসময় মেসি পেনাল্টি নেয়,গোল নিশ্চিত হয়। আর্জেন্টিনা ১-০ গোলে এগিয়ে যায়। তাছাড়াও ম্যাচের ২২ মিনিট থেকে শুরু করে ৩৩ মিনিট পর্যন্ত আর্জেন্টিনা ৩টি গোল করে। লাউতারো মার্টিনেজ ২টি ও একটি মেসি। কিন্তু সবগুলোই অফসাইডের আওতায় পরে। অর্ধ-ভাগে ১-০ গোলের লিড নিয়েই মাঠ ছাড়ে আর্জেন্টিনা। 


অর্ধ-ভাগের পর যেন খোলস ভেঙ্গে বের হয়েছিল সৌদি আরব। ৪৮ মিনিটে আল-শেহরি সমতায় আনে ম্যাচকে। তার ঠিক ৫ মিনিট অর্থাৎ ৫৩ মিনিটে বাজপাখি খ্যাত ইমিলিয়ানো মার্টিনেজকে চমকে জালে বল পাঠায় আল-দাওসারি। সৌদি ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায়। এরপর আর কোনো অঘটন ঘটতে দেয়নি সৌদি আরব। তারা তাদের ডিফেন্সকে তৎক্ষনাৎ মজবুত করে ফেলে। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের পরও অতিরিক্ত ১৫ মিনিট(প্রায়) দেওয়া হয়। তাতেও সমতায় আনতে পারেনি মেসিরা।


সৌদির প্রথম আর্জেন্টিনার সাথে জয় ও বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই জয় এটাও এই প্রথম করেছে তারা।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ